skip to Main Content

মানব পাচার প্রতিরোধ বিষয়ক জাতীয় কর্ম পরিকল্পনা (২০১৮-২০২২) এর কার্যকর বাস্তবায়নে বিভিন্ন শ্রেনি পেশার সাথে কর্ম – সম্পর্ক বৃদ্ধি ও মত বিনিময় সভা

কমিউনিটি পার্টিসিপেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট আয়োজনে ও টেরেডেস হোমস নেদারল্যান্ডস এর সহযোগিতা “শিশু পাচার ও শিশু সহিংসতা প্রতিরোধে বিভিন্ন শ্রেনি পেশার সাথে কর্ম – সম্পর্ক বৃদ্ধি এবং মানব পাচার প্রতিরোধ বিষয়ক জাতীয় কর্ম পরিকল্পনা (২০১৮-২০২২) এর কার্যকরী বাস্তবায়নের লক্ষ্যে জেলা পর্যায়ে মত বিনিময় সভা” ২৫ মার্চ ২০১৯ তারিখে পটুয়াখালীতে সোসাইটি ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি (এসডিএ) এর সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত হয় । এতে সভাপতিত্ব করেন পটুয়াখালীর শিশু অধিকার রক্ষা কমিটির সভাপতি শ.ম দেলোয়ার হোসেন দিলীপ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা দিলারা খানম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা সহকারী মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা , পটুয়াখালী, মোঃ মজিবর রহমান । সভায় সরকারী ও বেসরকারী পর্যায় থেকে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা সীমান্তবর্তী এলাকা না হলেও বিভিন্ন ধরনের বড় বড় উন্নয়ন কর্মকাণ্ড চলমান থাকায় পটুয়াখালী শিশু পাচারের জন্য ঝুকিমুক্ত নয়। তাই তিনি সবাইকে এর প্রতিকারে কাজ করা এবং পাচার বিরোধী কর্মকাণ্ড অগ্রাধিকার ভিত্তিতে গ্রহণ করার আহবান জানান। তিনি আরো বলেন জেলা পর্যায়ে পাচার প্রতিরোধে সক্রিয় ভূমিকা রাখতে পারে এমন বিভিন্ন ধরনের কমিটি থাকলেও সেগুলোর কার্যকরী ভূমিকা না থাকায় সহিংসতা কমছে না। তিনি জেলা প্রশাসনের সাথে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে আলোচনা করে জেলা মানব পাচার প্রতিরোধ কমিটিকে কার্যকরী ও সচল করার জন্য ভূমিকা রাখবেন।

সহকারী জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ মজিবর রহমান শিশুদের অংশগ্রহণ কে স্বাগত জানিয়ে বলেন, আজকাল আমাদের নৈতিকতা হ্রাস পাচ্ছে। ব্যাক্তিগত জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে সৎ হওয়ার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন প্রতিটি মানুষকে আত্মনির্ভরশীল হতে হবে এবং যেকোনো প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবেলা করার সক্ষমতা অর্জন করতে হবে। তিনি তার দপ্তরের মাধ্যমে স্কুল পর্যায়ে শিশু পাচার প্রতিরোধ বিষয়টি প্রচারের ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন।

হেতালিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শবনম মুশতারী বলেন আমাদের দেশে অনেক ভালো ভালো আইন থাকলেও তার যথাযথ প্রয়োগ না থাকা খুবি হতাশাজনক এবং এতে সন্ত্রাসী রা আরো ভয়ংকর সহিংস হতে অনুপ্রাণিত হয় । তিনি আইনের যথাযথ প্রয়োগের উপর গুরুত্বারোপ করে বলেন তার স্কুলের মাসিক সভায় পাচার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করবেন এবং শিক্ষার্থী দের মধ্যে এ বিষয়ে  সচেতনতা ছড়িয়ে দেবেন। জৈনকাঠী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ ফিরোজ আলম বলেন জন্ম নিবন্ধন বাধ্যতামূলক হলেও এখনও এর বহুবিধ ত্রুটি রয়ে গেছে এবং বিভিন্নভাবে এর অপব্যবহারের মাধ্যমে বাল্যবিবাহ এখনো হচ্ছে যার ফলাফল একসময় বিবাহ বিচ্ছেদ এবং পরিনামে পরিবারটি পাচারের ঝুকিতে পড়ে। তিনি পাচারের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের মাধ্যমে তার ইউনিয়নকে পাচারমুক্ত করার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেন।

পটুয়াখালী জেলা মানব পাচার প্রতিরোধ কমিটির সদস্য ও ব্রাক প্রতিনিধি নেফাজ উদ্দিন বলেন ব্রাক ইতিমধ্যে পাচার প্রতিরোধের লক্ষ্যে দক্ষতা বিকাশের জন্য তরুণদের সাথে কাজ শুরু করছে। তাই পাচার প্রতিরোধে পিসিটিএসসিএন প্রকল্পের কার্যক্রম শক্তিশালী করার সুযোগ রয়েছে বলে তিনি জানান।

সভার সভাপতি শ.ম দেলোয়ার হোসেন দিলীপ শিশু পাচারকে ঘৃণ্য অপরাধ হিসেবে উল্লেখ করে বলেন শিশু পাচার নিরসনে সরকার ও উন্নয়ন সহযোগী সংস্থাগুলোকে সর্বাধিক সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে কাজ করার আহবান জানান। এছাড়াও বক্তারা সরকারের বিভিন্ন ধরনের জাতীয় হেল্পলাইন গুলো থেকে সাধারন জনগণ যাতে সহজে এবং তাৎক্ষনিক সেবাসমুহ নিশ্চিতভাবে পেতে পারে তার জন্য জোড় দাবী জানান।

This Post Has 0 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *